মুজাক্কির হত্যা মামলার তদন্তে কাজ করছেন পিবিআই

নোয়াখালী: নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় সাংবাদিক বুরহান উদ্দিন মুজ্জাকির হত্যা মামলাটি তদন্তের স্বার্থে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই)তদন্ত টিমের কর্মকর্তারা।

তদন্ত টিমের নেতৃত্ব দেন পিআইবি নোয়াখালীর পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান মুন্সী।

তদন্তের সময় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ইন্সপেক্টর মোস্তাফিজুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে পিবিআই কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে স্থানীয় বিভিন্ন লোকজনের সঙ্গে কথা বলেন। এর আগে, মঙ্গলবার রাতে মামলার সব কাগজপত্র নোয়াখালী জেলা পিবিআইতে হস্তান্তর করা হয়।

পিবিআইয়ের তদন্ত দল ঘটনাস্থল চাপরাশিরহাট পূর্ব বাজারে এবং নিহতের বাড়িতে যান। তারা নিহতের পরিবারের সদস্য, স্থানীয় লোকজন এবং সংঘর্ষের সময় কর্মরত পুলিশ সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেন।

পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান মুন্সী বলেন, ঘটনাস্থল থেকে তথ্য, ফুটেজ নিয়েছি, আরও তথ্য সংগ্রহ করা হবে। এ মামলার নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু তদন্তের চেষ্টা করছি। দ্রুততম সময়ের মধ্যে এ মামলার তদন্ত সম্পন্ন করার চেষ্টা করবো।

গত শুক্রবার উপজেলার চাপরাশিরহাট পূর্ব বাজারে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই বসুরহাট পৌর মেয়র আবদুল কাদের মির্জা এবং সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান  ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান বাদলের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়।

এসময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশও কয়েক রাউন্ড টিয়ারসেল ও শর্টগানের গুলি ছোড়ে। ঘটনার ছবি ও ভিডিও ধারণ করতে গিয়ে ত্রিমুখী সংঘর্ষের মুখে পড়ে গুলিবিদ্ধ হন সাংবাদিক মুজাক্কিরসহ সাত-আটজন। পরে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার রাত পৌনে ১১টায় মারা যান মুজাক্কির।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার সকালে নিহতের বাবা নোয়াব আলী মাস্টার বাদী হয়ে অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে কোম্পানীগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। সেদিন রাতে মামলাটি অধিকতর তদন্তের জন্য পিবিআইতে হস্তান্তর করা হয়।

উল্লেখ্য মুজাক্কির হত্যার প্রতিবাদে সারাদেশব্যাপি মানসসন্ধন ও সমাবেশ করছেন সাংবাদিক মহল।