শ্রমিকরাই হলেন দেশ গড়ার কারিগর

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন দিয়ে মানুষের মুখ বন্ধ করা যায় না বলে মন্তব্য করে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ও প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, ‘এখন সময় এসেছে ডিজিটাল আইনকে কবর দেয়ার।’

শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) সকালে তোপখানা রোডের শিশু কল্যাণ পরিষদ মিলনায়তনে বাংলাদেশ শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সভা ও জাতীয় কাউন্সিলে এ কথা বলেন তিনি।

জাফরুল্লাহ বলেন, ‘পৃথিবীর যেকোনো জায়গায় মন্ত্রী, প্রধানমন্ত্রীর নামে যেকোনো কিছু বলা যায়। হাসি ঠাট্টা করা যায়। ট্রাম্পকে নিয়ে কত হাসি ঠাট্টা করা হয়েছে। আমি যখন বিলেতে ছিলাম সেদেশের প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে হাসি ঠাট্টা করতে দেখেছি। এ নিয়ে কাউকে জেলে যেতে হয়নি। কিন্তু এখানে কিছু বললে এখন জেলে যেতে হয়।’

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় গ্রেপ্তার লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যু প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর জনসম্মুখে এসে মুশতাকের পরিবারের কাছে ক্ষমা চাওয়া উচিত।’ তার পরিবারকে ৫০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার আহ্বানও জানান তিনি।

শ্রমিকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘একটা জাতি কতটা সভ্য, কতটা ন্যায়ভিত্তিক তা নির্ভর করে কৃষক ও শ্রমিকের সাথে তাদের ব্যবহারের ওপর। আপনারা শ্রমিকরাই হলেন দেশ গড়ার কারিগর, আপনাদের সৃষ্টির ওপর ভিত্তি করেই গড়ে উঠেছে বাংলাদেশ। আজকে যত বৈভব, যত বড় বড় স্বপ্ন তার প্রত্যেকটা ক্ষেত্রে অবদান রয়েছে আপনাদের।’

সংগঠনের নির্বাহী সভাপতি মোখলেসুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে শ্রমিক নেতা জাকির হোসেন, আ. হাকিম, আম্বিয়া খাতুন, ইঞ্জিনিয়ার ওসমান গনি, গোলাম কাদের প্রমুখ বক্তব্য দেন।