পিতার হত্যা মামলার আসামিরা জামিনে বের হয়ে মেয়েকে ধর্ষণ:৯৯৯ নম্বরে অভিযোগ

 মোঃরফিকুল ইসলাম মিঠুঃ গাইবান্ধায় আওয়ামী লীগ নেতার হত্যা মামলার আসামিরা জামিনে বের হয়ে তার মেয়েকে শারিরীক নির্যাতন করে।

এ ঘটনায় মেয়ের শ্বশুর ৬ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ৫ জনের বিরুদ্ধে শুক্রবার (৫ মার্চ) থানায় মামলা করেন। গাইবন্ধার ফুলছড়ি উপজেলায় বৃহস্পতিবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। পরিবারসূত্রে জানা যায়, গত ৯ ফেব্রুয়ারি গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টাকে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়।

এ ঘটনায় হাসমত দেওয়ানসহ ২৬ জনকে আসামি করে মামলা করে পরিবার। হাসমতসহ আসামিরা উচ্চ আদালত (হাইকোর্ট) থেকে জামিনে মুক্ত হয়ে বুধবার (৩ মার্চ) আওয়ামীলীগ নেতার বাড়িতে হামলা চালায় এবং ভাঙচুর করে। নির্যাতিতার পরিবারের অভিযোগ, বৃহস্পতিবার দুপুরে জমিতে ভুট্টার পাতা ছিঁড়তে গেলে নির্যাতনের স্বীকার হওয়া মেয়েকে আসামি হাসমত দেওয়ানের বোন চায়না বেগমসহ কয়েকজন যুবক মুখ বেঁধে একটি বাড়িতে নিয়ে যায়। সেখানে তাকে ধর্ষণ করে এবং পরে তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় একটি ভুট্টা ক্ষেতে ফেলে রেখে যায়।

নির্যাতিতাকে উদ্ধারের জন্য ফুলছড়ি থানা পুলিশকে খবর দেয়া হয়। কিন্তু থানা পুলিশের পক্ষ থেকে কোনো সাড়া না পাওয়ায় অভিযোগ করে নির্যাতিতার স্বজনরা। ৯৯৯ নম্বরে অভিযোগ করার পর বাধ্য হয়ে ফুলছড়ি থানা থেকে পুলিশ গিয়ে মেয়েটিকে সন্ধ্যায় উদ্ধার করে। পরে নির্যাতিতা গুরুতর অসুস্থ হওয়ায় তাকে গাইবান্ধা জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গাইবান্ধা জেলা হাসপাতালের জরুরি বিভাগের মেডিকেল অফিসার ডা. ইমরান হোসাইন জানান, মেয়েটির শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ধর্ষণের ব্যাপারে পরীক্ষার পর বিস্তারিত জানানো যাবে।

ফুলছড়ি থানার ওসি কাওছার আহমেদ বলেন, তারা ৯৯৯ নম্বরে অভিযোগ দিলে ফুলছড়ি থানা থেকে পুলিশ গিয়ে নির্যাতিতাকে উদ্ধার করে গাইবান্ধা জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ব্যাপারে থানায় মামলা হয়েছে। আসামি গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।