ভান্ডারিয়ায় এতিম দুই শিশুকে নির্যাতন, হাত ভেঙ্গে গেল একজনের

পিরোজপুরঃ পিরোজপুরের ভান্ডারিয়ায় ছেলেদের নামে নালিশ করায় ছোট্ট দুই শিশুকে লাঠি দিয়ে নির্মমভাবে মারধর করে হাত ভেঙ্গে দিয়েছে প্রতিবেশী ।

ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলায় ধাওয়া ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের রায়পাশা গ্রামে। বুধবার (১০ মার্চ) বিকালে ঘটে এ ঘটনা। মো. রাহাত হাওলাদার (১১) ও ওহেদুল ইসলাম হাওলাদার (৯) নামের দুই শিশুকে প্রতিবেশী মারধর করে। মারধরে পিতা মাতাহীন রাহাতের হাত ভেঙে গিয়েছে।

এ ঘটনায় ভান্ডারিয়া থানায় একটি মামলা করা হয়েছে।
দুই বছর আগে রাহাতের বাবা-মা মারা যাওয়ায় সে রায়পাশা গ্রামে মামা বেলাল হাওলাদারের বাড়ি থাকে। সে রায়পাশা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী।

এদিকে ওহেদুল ইসলাম হাওলাদার বেলাল হাওলাদারের ছেলে। সে রায়পাশা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী।আহত রাহাত জানায়, বুধবার বিকালে রাজপাশায় বাদল হাওলাদারের বাড়ির কাছের রাস্তায় তার দুই ছেলে সাইমুন ও সিয়াম তাদের চাচাত ভাই মুবিনকে মারধর করছিল। বিষয়টি মুবিনের মার কাছে জানাই আমরা। পরে সাইমুনের বাবা বাদল জানতে পেরে রেগে গিয়ে আমায় ও আমার মামাত ভাইকে লাঠি দিয়ে মারধর করে। মারধরে আমার বাম হাত ভেঙে যায়। পরে স্থানীয়রা আমাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করায়।

চিকিৎসক ফয়সাল আহম্মেদ জানিয়েছেন, রাহাতের বাম হাত ভেঙে গেছে। তার কনুই বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে, হাড় ভেঙে গেছে। এছাড়াও শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের দাগ পাওয়া গেছে। ওহেদুলের শরীরেও ফুলা জখম রয়েছে। আহত রাহাতকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।
ভান্ডারিয়া থানার ওসি মাসুমুর রহমান বিশ্বাস জানান, অভিযুক্ত বাদল হাওলাদারের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়েছে। তাকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। পিতৃ-মাতৃহীন অসহায় রাহাতের চিকিৎসার ব্যয়ভার বহন করছে থানা পুলিশ। ইতিমধ্যে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।