চির নিদ্রায় শায়িত বীর মুক্তিযোদ্ধা আলফাজ উদ্দিন সরদার

আমিনুল ইসলামঃ রাজধানীর দক্ষিণ খান থানার দক্ষিণ ফায়দাবাদ নিবাসী বীর মুক্তিযোদ্ধা আলফাজ উদ্দিন সরদার আজ ২০ মার্চ শনিবার দুপুর ২.৩০মিনিটে পরলোক গমন করেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহী রাজিউন।

দীর্ঘদিন ধরে তিনি বার্ধক্য জনিত রোগে ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর। তিনি দুই ছেলে ও দুইমেয়ে, নাতি নাতনী ও অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। বেশ কিছু দিন অসুস্থ ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকার পর কিছুটা সুস্থ মনে হলে তাকে আজ সকালে বাসায় নিয়ে আসা হয়। আজ বেলা ১টার দিকে শারীরিক অবস্থার আবারো অবনতি হলে তাকে নিয়ে শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের উদ্দেশ্যে রওনা হলে পথিমধ্যে এম্বুলেন্স এ তিনি মারা যান বলে তাঁর পরিবারের পক্ষ হতে জানানো হয়।

এলাকাবাসী ও বিভিন্ন তথ্যসুত্রে জানা যায়- মরহুম বীর মুক্তিযোদ্ধা আলফাজ উদ্দিন সরদার ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন করেন এবং নিজের জীবন বাজি রেখে যুদ্ধ করে দেশকে স্বাধীন করেছেন।

যুদ্ধ পরবর্তীকালে তিনি দেশ গঠনে অংশগ্রহন করেন। আমৃত্যু তিনি সমাজসেবায় নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন। সর্বশেষ তিনি দক্ষিন ফায়দাবাদ কল্যাণ সমিতির সম্মানিত উপদেষ্টা ছিলেন। ডিএনসিসি ৪৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোতালেব মিয়া মরহুমের বাড়িতে আসেন ও মরহুমের রুহের মাগফিরাত কামনা করেন। দক্ষিন ফায়দাবাদের আফতাব মার্কেট সংলগ্ন বালুর মাঠে তার নামাজে জানাযা অনুষ্ঠিত হয়।

বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর একটি চৌকশ দল জানাযা শেষে তাঁকে গার্ড অব অনার প্রদান করেন। এসময় বিহগলে করুন সুর ফুটে উঠে। জানাযা শেষে স্থানীয় গন কবরস্থানে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তাঁকে দাফন করা হয়।

মরহুম সম্পর্কে জানতে চাইলে দক্ষিন ফায়দাবাদ কল্যাণ সমিতির সভাপতি মোঃ সফিকুল ইসলাম বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা আলফাজ উদ্দিন সরদার খুব ভালো মানুষ ছিলেন, তিনি আমাদের সমিতির সম্মানিত উপদেষ্টা ছিলেন। আমরা সামাজিক কার্যক্রমে তাকে কাছে পেয়েছি। সমিতির পক্ষ হতে সমবেদনা জানাচ্ছি এবং তার রূহের মাগফিরাত কামনা করছি।

সমিতির সিঃ সহসভাপতি ও দৈনিক সংবাদ দিগন্ত পত্রিকার সম্পাদক এ,বি,এম, মনিরুজ্জামান বলেন, মরহুম বীর মুক্তিযোদ্ধা জাতির শ্রেষ্ট্র সন্তান। তিনি আমার প্রতিবেশী। আমরা শ্রদ্ধার সাথে তাঁকে স্বরন করি ও তার রূহের মাগফিরাত কামনা করি।

মরহুমের জানাযায় অংশ গ্রহন কালে দক্ষিণখান ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও ঢাকা মহনগর উত্তর আওয়ামীলীগের মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব এস এম তোফাজ্জল হোসেন বলেন, তিঁনি একজন মুক্তিযোদ্ধা। একজন মুক্তিযোদ্ধা নিজের পরিবার পরিজন ছেড়ে কতটা ত্যাগ স্বীকার করে যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েছিলেন, আমরা জানি। ফিরে আসতে পারবো কিনা আমরা জানতাম না। সকলের কাছে এ মহান মুক্তিযোদ্ধার জন্য দোয়া চেয়েছেন তিনি।

জানাযায় আরো যারা অংশ গ্রহন করেন দক্ষিনখান থানা কমান্ডার আলহাজ্ব মোহাম্মদ আলী, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোতাহার হোসেন, স্থানীয় মসজিদে নুর জামে মসজিদের সেক্রেটারী আবতাবউদ্দিন, রশিদ গ্রুপের চেয়ারম্যা ও রাজনৈতিক নেতা মোতালেব হোসেন রতনসহ দক্ষিন ফায়দাবাদ কণ্যাণ সমিতির নেতৃবৃন্দ্র ও স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এবং সর্বস্তরের জনগন।

মৃত্যুর পর প্রশাসনের একটি চৌকসদল তাকে রাষ্ট্রিয় মর্যার অনার করেন।