উত্তরায় ব্যাথা মুক্ত নরমাল ডেলিভারী করছেন নষ্ট্রাম হাসপাতাল

মাহফুজুল আলম খোকনঃ প্রতিদিন পাল্লাদিয়ে বেড়েছে সিজারিয়ান গর্ভভবতী মায়েদের সংখ্যা। নিয়ম না মানায় সেই সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মায়েদের স্বাস্থ্য ঝুকিও।
এমতাবস্থায়,মা ও শিশুর স্বাস্থ্য সুরক্ষায় সিজারিয়ন পদ্ধতি থেকে সরে প্রাকৃতিক নিয়মে স্বাভাবিক ডেলিভারীর প্রতি এগিয়ে আসার জন্য মায়েদের আহবান করেছেন,শহীদ সরোয়ারদি মেডিকেল কলেজ এর গাইনি বিভাগের প্রধান, প্রফেসর ড. মুনিরা ফেরদৌসী।

গতকাল,উত্তরা ৪নং সেক্টরের একটি হোটেলে নষ্ট্রাম হাসপাতাল কর্তৃক আয়োজিত,সাইন্সের চমক, ব্যাথা মুক্ত নরমাল ডেলিভারী বিষয়ক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

নষ্ট্রাম হাসপাতাল কর্তৃক আয়োজিত আলোচনা সভায় হাসপাতালের চেয়াম্যান ড. এ.টি.এম রাশিদুন নবীর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন,ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ও প্লাষ্টিক র্স্জারি বিভাগের প্রধান,প্রফেসর ড. বিধান সরকার, ও ড. জেবুনসেনা রুমা সহ অর্ধশত গাইনী বিভাগের প্রফেসর গন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ড. জেবুননেসা বলেন,প্রায় তিনশত বছর আগে থেকেই,ব্যাথামুক্ত নরমাল ডেলিভারী ব্যাবস্থা থাকা সত্যেও ব্যাথার ভয়ে অনেক গর্ভবতী মা সিজারের সিদ্ধান্ত গ্রহন করেন। যার ফলশ্রুতিতে দিনকে দিন এর প্রবনতা বেড়েই চলেছে। এমন পরিস্থিতে প্রাইভেট কিøনিকের মালিকরা অনেকটা বাধ্যহয়েই সিজারের সিদ্ধান্তে উপনিত হচ্ছেন বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি।
এসময় সভাপতির বক্তব্যে উত্তরা ৬ নং সেক্টরস্থ নষ্ট্রাম হাসপাতালের চেয়ারম্যান ড. এ.টি.এম রাশিদুন নবী,গর্ভবতি মায়েদের উদ্দেশ্যে বলেন,স্বাস্থ্য নিয়ে যদি এতই ভাবনা হয় তাহলে আপনারা আমাদের হাসপাতালে ভর্তি হয়ে ব্যাথা মুক্ত নরমাল ডেলিভারী সেবাটি নিতে পারেন। একান্তই যদি আপনার সিজার করতে হয় সেই খেত্রে কর্তব্যরত চিকিৎসক তার ব্যবস্থা নিবেন। সে জন্য আপনাকে শুধু প্রয়োজনীয় ওষুধ পত্র কিনলেই চলবে বলে জানান তিনি। এসময় উপস্থিত স্ত্রী রোগ বিশেষজ্ঞ ডাক্তার ও গৃহীনিদের নানান প্রশ্নের জবাব শেষে বিকেল সাড়ে ৩ টায় এর সমাপ্তি ঘটে।