দিনাজপুরের লোহার খনির অনুসন্ধানের কাজ শুরু

দিনাজপুরঃ দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে সম্ভাবনাময় নতুন লোহার খনি অনুসন্ধানের কাজ শুরু করেছে। বাংলাদেশ ভূ-তাত্বিক জরিপ অধিদপ্তর-(জিএসবি ) খনির অবস্থান চিহ্নিত করে আনুষ্ঠানিকভাবে কুপ খননের মধ্য দিয়ে কাজ করছে ভু-তাত্বিক দল।

এলাকার মানুষ উচ্চসিত খনি পাওয় গেলে বদলে যাবে এঞ্চলের মানুষের আর্থিক সামাজিক অবস্থা। সম্ভাবতা যাচাইয়ের পর শিলাস্তরের তথ্য সরকারকে অবহিত করা হবে জানালেন জিএসবির মহাপরিচালক।

দিনাজপুর জেলার চিরিরবন্দর উপজেলার ১০নং পুনট্রি ইউনিয়নের কেশবপুর মৌজায় এই খনির অবস্থান চিহ্নিত করা হয়েছে। এই অঞ্চলের মাটি পরীক্ষা নিরীক্ষা করে ২০০১ সালে নিশ্চিত হয়েছেন লৌহখনিজ পদার্থ রয়েছে। এরইমধ্যে, সম্ভাব্যতা যাচাইয়ে, কূপ খননের কাজেও নেমেছে অনুসন্ধানী দল। দিনরাত কাজ করছেন টেকনিশিয়ান এবং শ্রমিকরা। লোহার সঙ্গে তামাসহ অন্যান্য মূল্যবান সম্পদ পাওয়ার আশাও করছেন তারা। আজ অনুসন্ধান কাজের উদ্ধোধন করলেন বাংলাদেশ ভূ-তাত্বিক জরিপ অধিদপ্তরের মহা পরিচালক ড, শের আলী। চলছে কুপ কননের কাজ। সংরক্ষিত এলাকা হিসাবে সাইনবোর্ড লাগানো হয়েছে।

এলাকাবাসীর দাবী খনি হলে জমির মালিকরা যেন সরকারের কাছে জমির নায্য মুল্য পায় ও এলাকার মানুষের খনিতে যেন কর্মস্থল হয়।

এদিকে জিএসবির মহাপরিচালক জানালেন অনুসন্ধান কাজ শেষ হলে শিলাস্তরের কোথায় কোন সম্পদ রয়েছে সরকারকে অবহিত করা হবে।

জিএসবির অধীনে প্রকৌশলী, ভু-তত্ববিদসহ ১০ জন কর্মকতা এবং ২৩ টেকনিশিয়ান এবং ওয়ার্কার কাজ করছেন। কুপ খননসহ অনুসন্ধানের কাজ চলবে ৩ মাস।