গৃহপরিচারিকা নির্যাতনে অভিযুক্ত গৃহকত্রী মাহফুজা গ্রেফতার

মনির হোসেন জীবনঃ শান্তা ইসলাম তামান্না – রাজধানীতে গৃহপরিচারিকা নির্যাতনের মামলার অভিযুক্ত গৃহকত্রীকে ভাটারা এলাকা থেকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)।

গ্রেফতারকৃতের নাম মাহফুজা রহমান (২৫), স্বামী- মোহাম্মদ আসাদুর রহমান, জেলা- পিরোজপুর বলে জানা গেছে ।

র‍্যাব-১ এর সহকারী পুলিশ সুপার (অপস্ অফিসার) মুশফিকুর রহমান তুষার আজ শনিবার এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, গত ৩০ জুন ২০২১ ইং তারিখ আনুমানিক সাড়ে ৬ টার দিকে রাজধানীর ভাটারা থানাধীন কুড়িল বিশ্বরোড এলাকায় বিবাদী মোহাম্মদ আসাদুর রহমান (৩৯) তার বাসার গৃহকর্মী ভিকটিম কুলসুমা আক্তার (১৪)’কে অসুস্থ অবস্থায় তার বোন ফাতেমা বেগম এর নিকট দিয়ে চলে যায়। ভিকটিম কুলসুমা আক্তারের বোন ভিকটিমের শরীরের বিভিন্ন স্থানে আগুনে পোড়া ক্ষতসহ বিভিন্ন দাগ দেখতে পায়। পরবতীতে ভিকটিমের বোন ভিকটিমকে চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। পরে এ বিষয়ে ভিকটিমের বোন বাদী হয়ে ডিএমপির ভাটারা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। যার নম্বর-০২ তারিখ-০১/০৭/২০২১ ধারা- ২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন (সংশোধনী ২০০৩) এর ৪ (২)(খ)।

র‍্যাব জানান, গৃহকমী’কে এ নির্মম নির্যাতনের ঘটনাটি ওই এলাকায় আলোড়ন সৃষ্টি করে এবং বিভিন্ন টেলিভিশন ও সংবাদ মাধ্যমে গুরুত্বের সাথে প্রচারিত হয়। পরবতী’তে এই ঘটনার প্রেক্ষিতে র‍্যাব ফোর্সেস সদর দপ্তরের গোয়েন্দা শাখা তাৎক্ষনিকভাবে অপরাধীদের আইনের আওতায় আনতে দ্রুততম সময়ে ছায়া তদন্ত শুরু করে এবং গোয়েন্দা নজরদারী বৃদ্ধি করে।

পরে গোপন সংবাদের ভিওিতে র‍্যাব-১ এবং র‍্যাবের গোয়েন্দা শাখার একটি দল শুক্রবার
সাড়ে ১০ টার দিকে রাজধানীর ভাটারা এলাকায় অভিযান চালিয়ে গৃহপরিচারিকা নির্যাতনের মামলার অভিযুক্ত গৃহকত্রীকে মাহফুজা রহমান (২৫), স্বামী- মোহাম্মদ আসাদুর রহমান, জেলা- পিরোজপুর’কে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ধৃত আসামী
ভিকটিম কুলসুমা আক্তারকে সে নিযা’তন করেছে বলে স্বীকার করেছে।

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, ভিকটিম কুলসুমা আক্তার (১৪) গত ১২ নভেম্বর ২০২০ ইং তারিখ বিবাদী মাহফুজা রহমান এর বাসায় গৃহকর্মী হিসেবে কাজ শুরু করে। ভিকটিম উক্ত বাসায় গৃহকর্মী হিসেবে কাজ করার পর থেকে সামান্য বিষয়ে বিবাদী ভিকটিমকে মারধর করত। কাজে সামান্য ভূল করলেই বিবাদী ভিকটিমকে লাঠি দিয়ে মারধর, প্লাস দিয়ে চুল ধরে টান দেয়া, রান্নার কাজে ব্যবহৃত খুন্তি আগুনে জ্বালিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে ক্ষত করাসহ বিভিন্ন উপায়ে
শারীরিকভাবে নির্যাতন করে আসছিল।

র‍্যাব-১ এবং সহকারী পরিচালক আরও জানা যায়, গত ১৫ জুন ২০২১ ইং তারিখ সকাল অনুমান ১০ টার দিকে বিবাদীর বাসায় ঘর পরিস্কার করতে দেরি হওয়ায় বিবাদীর স্বামী মোহাম্মদ আসাদুর রহমান লাঠি দিয়ে ভিকটিমের পায়ের উরুসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম করে এবং সে নিজে মাহফুজা রহমান ভিকটিমের চুলের মুঠি ধরে ভিকটিমকে মারধর করতে থাকে। মারধরের একপর্যায়ে মোহাম্মদ আসাদুর রহমান গ্যাসের চুলার আগুনে রড় গরম করে ভিকটিমের ডান পায়ের হাটুর নিচের অংশে চেপে ধরে এবং মাহফুজা রহমান ভিকটিমের হাত গরম পানিতে চেপে ধরে। এতে ভিকটিমের হাটুর নিচে আগুনে পোড়া ক্ষতের সৃষ্টি হয় এবং হাতের তালুতে ফোস্কা পড়ে। এহেন শারীরিক নির্যাতনের ফলে ভিকটিম গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে বিবাদীদ্বয় ভিকটিমকে তার বোনের কাছে পাঠিয়ে দেয়।

সহকারী পুলিশ সুপার মুশফিকুর রহমান তুষার আজ দুপুরে আরও জানান, শনিবার দুপুরে ধৃত মামলার আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ভাটারা থানার পুলিশের নিকট সোপর্দ করা হবে।
এবিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের প্রস্তুতি চলছে।

এদিকে, ভাটারা থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোঃ রফিকুল হক বলেন, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত সাড়ে ১১ টার দিকে গৃহকর্মীকে নির্যাতন করার অভিযোগে মূল আসামী ও বাসার মালিক মোহাম্মদ আসাদুর রহমান (৩৯)কে রাজধানীর ভাটারা থানার জোয়ার সাহারার এল এম টাওয়ারের একটি ফ্ল্যাট থেকে ডিএমপির ভাটারা থানা পুলিশ আটক করে।

এ বিষয়ে ডিএমপির ভাটারা থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।