স্বামীকে খুন, স্ত্রী ও প্রেমিক গ্রেফতার

সুমন পাটোয়ারী (গাজীপুর)ঃ গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কাশিমপুর থানা এলাকায়  স্ত্রীর পরকিয়ায় বাধা দেয়ায় স্বামী জাহিদুল ইসলাম (৩০)কে হত্যা পর নির্মাণাধীন ঘরের মেঝের বালুর নীচে পুতে রাখা হয়।
পুলিশ, কুড়িগ্রাম ও জামালপুর জেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে স্ত্রী রোজিনা আক্তার  রুপালী (১৮) ও তার প্রেমিক মোহাম্মদ সুজন মিয়া(১৯)কে শনিবার রাতে গ্রেফতার করেছে ।
এর আগে গত ১৬ জুলাই দুপুরে জিএমপি কাশিমপুর থানাধীন পশ্চিম শৈলডুবী এলাকায় ছোফর উদ্দিন ওরফে ছাফুর এর নির্মাণাধীন ঘরের মেঝের বালুর নীচে জাহিদুল ইসলাম (৩০)এর অর্ধগলিত মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।
গ্রেফতারকৃত রোমান্স আক্তার  রুপালী  কুড়িগ্রামের রৌমারী থানার বড়কান্দি গ্রামের শুকুর আলী দেওয়ানীর মেয়ে এবং জাহিদুলের স্ত্রী ও মোহাম্মদ সুজন মিয়া(১৯) জামালপুর জেলার বকশিগঞ্জ থানার নীলেরচর গ্রামের নজরুল ইসলাম সরকারের ছেলে ।
গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার জাকির হাসান জানান, গত(১৬ জুলাই) লাশটি উদ্ধার করার পরে কাশিমপুর থানায় একটি মামলা রুজু হয় । পরে জিএমপি কাশিমপুর থানা পুলিশের একাধিক ট্রিম কুড়িগ্রাম জেলা এবং জামালপুর জেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়।
প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে হত্যাকান্ডের কথা স্বীকার করেছে গ্রেফতারকৃতরা । তাদের দেয়া তথ্যের দিয়ে জানান, জাহিদুলের স্ত্রী রুপালী খাতুনের সুজনের ৮ থেকে ৯ মাসের পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক ছিলো । ৬ জুলাই রাতে পু্র্ব পরিকল্পনা অনুসারে জাহিদুল ইসলামকে রোজিনা আক্তার  রুপালী দুধের সাথে ঘুমের ঔষধ মিশে খাওয়ায় । ওই দিন গভীর রাতে সুজন ঘুমন্ত জাহিদুলের হাতপা চেপে ধরে এবং রুপালী তার বুকের উপর বসে বালিশ চাপা দিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করে । পরে দুইজন মিলে পাশের নির্মানাধীন ঘরের বালির নীচে মরদেহ চাপা দিয়ে পালিয়ে যায় তারা।
পুলিশ জানান গ্রেফতারকৃতদের আদালতে পাঠানো হয়েছে