আশুলিয়ায় বাস চাপায় শ্রমিক নিহত, তিন পরিবহনে আগুন

মোঃ রিপন মিয়া (সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার:)
ঢাকার আশুলিয়ায় বাস চাপায় পোশাক কারখানার এক কর্মকর্তা নিহতের ঘটনায় ‘আশুলিয়া ক্ল্যাসিক’ পরিবহনের একটি বাসসহ কয়েকটি পরিবহনে আগুন দিয়েছেন বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা।

বৃহস্পতিবার (১১ মার্চ) রাত ৮টার দিকে টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড সড়কের নরসিংহপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ সময় তিন পরিবহনে আগুন ও আট থেকে ১০টি পরিবহন ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। এতে সড়কটিতে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রাত ৮টার দিকে নরসিংহপুর বাসস্ট্যান্ডে এক পোশাক কারখানার অ্যাডমিন অফিসার শামসুল আলমকে একটি বাস চাপা দেন। তাকে উদ্ধার করে নারী ও শিশু হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

খবর পেয়ে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা ১০-১২টি বাস ভাঙচুর করেন। একই সঙ্গে তিনটি বাসে আগুন ধরিয়ে দেন। এতে আলিফ পরিবহন ও আশুলিয়া ক্ল্যাসিক পরিবহনের তিনটি বাস পুড়ে যায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শ্রমিক বলেন, শারমিন গ্রুপের অ্যাডমিন অফিসার শামসুল আলমকে আশুলিয়া ক্ল্যাসিক পরিবহন চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই নিহত হন। খবরটি ছড়িয়ে পড়লে শ্রমিকরা একত্রিত হয়ে বাস ভাঙচুর শুরু করেন। শেষে বাসে আগুন ধরিয়ে দেয়।

রিপোর্ট টি লেখার সময়, ইপিজেড ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার জাহাঙ্গীর আলম বলেন, খবর পেয়ে তিনটি বাসের আগুন নেভানোর কাজ করছে ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট।

শ্রমিক নেতা সোহাগ বলেন, এই সড়কে বাসগুলো খুব বেপরোয়াভাবে চলাফেরা করে। বাস চলাচল নিয়মের মধ‌্যে আনা জরুরি। বর্তমানে ঘটনাস্থলে আশুলিয়া থানার দুই উপ-পরিদর্শক (এসআই) হারুন অর রশিদ ও সুদিপ কুমার গোপ রয়েছেন। তারা শ্রমিকদেরকে বুঝিয়ে সড়ক স্বাভাবিক করার চেষ্টা করছেন।

আশুলিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জিয়াউল ইসলাম জানান, ঘটনাস্থলে আমরা আছি। বিষয়টি খতিয়ে দেখছি। একই সঙ্গে সড়কে স্বাভাবিক পরিস্থিতি ফিরিয়ে আনার চেষ্টা চলছে।