রাজধানী থেকে বৃদ্ধ জয়নাল আবেদীন হত্যাকান্ডের মূলহোতা মোঃ রুবেল গ্রেফতার

আমিনুল ইসলামঃ রাজধানীর হাজারীবাগ থেকে বৃদ্ধ জয়নাল আবেদীন (৬০) হত্যাকান্ডের মূলহোতা মোঃ রুবেল (২৫)’কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

গত ০১ জুলাই ২০২১ ইং তারিখ বিকাল ৩ টার দিকে রাজধানীর আশুলিয়া থানার ভাদাইল এলাকার আব্দুল লতিফ ভান্ডারীর ভাড়া বাসায় টাকা লেনদেন সংক্রান্তপূর্ব শত্রুতার জের ধরে ভিকটিম জয়নাল আবেদীন (৬০)’কে মোঃ রুবেল (২৫) বালিশ চাপা দিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়।

র‌্যাব জানায়, ভিকটিম জয়নাল আবেদীন একজন অটোরিকশা চালক। সে গত ০১ জুলাই ২০২১ ইং তারিখ বৃহস্পতিবার প্রতিদিনের ন্যায় দুপুরে খাবার খেয়ে বাসা হতে বের হয়। রাত অনেক হয়ে গেলেও ভিকটিম বাসায় না ফেরায় তার পরিবার  বিভিন্ন স্থানে খোজাখুজি করতে থাকে। পরবর্তীতে তাদের পাশের বাসার ভাড়াটিয়া রুবেলের রুম তালাবদ্ধ দেখে ভিকটিমের পরিবারের সন্দেহ হয়। বাসা মালিকের মাধ্যমে রুবেলের মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে রুবেল তার রুমে ঘুমাচ্ছে বলে জানায়। পরবর্তীতে ভিকটিমের পরিবার রুবেলের ঘরের জানালা দিয়ে খাটের নিচে ভিকটিমের মৃতদেহ দেখতে পায়।

পরে বিষয়টি থানা পুলিশকে অবহিত করলে গত ০২ জুলাই ২০২১ ইং তারিখ শুক্রবার আনুমানিক বিকাল ৩টার দিকে আশুলিয়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ
উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

আজ শনিবার সকাল ১০ টা ৩০ মি. দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ঢাকার হাজারীবাগ থানাধীন বউবাজার এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে হত্যাকান্ডের মুলহোতা মোঃ রুবেল (২৫), জেলা- মাদারীপুর’কে হত্যাকান্ডের ৩৬ ঘন্টার মধ্যেই গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে রুবেল হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে।বিষয়টি নিশ্চিত করেন র‌্যাবের সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার মোঃ মোরশেদুল হাসান।

গ্রেফতারকৃত মোঃ রুবেলকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে র‌্যাব জানতে পারে, সে রাজমিস্ত্রির কাজ করে।পাশাপাশি সে দীর্ঘদিন যাবত মাদক ব্যবসা করে আসছিল। ঘটনার দিন অর্থাৎ ০১ জুলাই ২০২১ ইং বৃহস্পতিবার দুপুরের পর জয়নাল আবেদীন রুবেলের রুমে পাওনা টাকা চাইতে আসে। পাওনা টাকাকে কেন্দ্র করে দুজনের মধ্যে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে রুবেল ভিকটিম জয়নালকে বিছানায় ফেলে বালিশ চাপা দিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে এবং লাশটি খাটের নিচে রেখে রুম তালাবদ্ধ করে পালিয়ে যায়। বিষয়টি নিশ্চিত করেন র‌্যাবের

গ্রেফতারকৃতের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।